ঢাকাSaturday , 18 June 2022
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. কক্সবাজার
  4. চট্টগ্রাম
  5. জাতীয়
  6. পার্বত্য চট্টগ্রাম
  7. বিনোদন
  8. রাজনীতি
  9. শিক্ষা
  10. সারাদেশ
  11. সাহিত্য
  12. স্বাস্থ্য

চকরিয়ায় চারা ব্যবসায়ীদের মুখের হাসির ঝিলিক

Raju Das
June 18, 2022 11:44 am
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কক্সবাজারের চকরিয়ায় কয়েক দিনের বৃষ্টিতে ফলদ, বনজ, ঔষধিসহ বিভিন্ন ধরনের চারা রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছেন মানুষ। বৃক্ষরোপণের এ মৌসুমকে কেন্দ্র করে নার্সারি থেকে চারা ক্রয় করে ভ্যানগাড়ি যোগে উপজেলা ও পৌরশহরে বাজারগুলোতে চারা বিক্রির ধূম শুরু হয়েছে।
জানা যায়, প্রকৃতিতে এখন বর্ষাকাল। গাছ লাগানোর উপযুক্ত সময়। বলা হয়ে থাকে জুন জুলাই মাসে চারা রোপণ করা শতভাগ গাছ বাঁচানো সম্ভব। ফলে যারা বাড়ির আঙিনা বা ছাদে শখের বসে ছোট্ট বাগান গড়ে ‍তুলতে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। এ-সময়টা কে কাজে লাগিয়ে উপজেলায় ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় শতাধিক নার্সারি গড়ে উঠেছে। যদিও কৃষি অফিস থেকে সুনির্দিষ্ট সংখ্যা জানা যায়নি। এসবের মধ্যে বেশির ভাগ নার্সারি রাস্তার পাশে এবং বাড়ির আঙ্গিনায়। এসব নার্সারি করে তাদের মধ্যে অনেকেই স্বাবলম্বী হয়েছেন। অল্প পুঁজিতে বেশি লাভ হওয়ায় এলাকার তরুণ ও যুবকেরা এ ব্যবসায় ঝুঁকেছেন। এখান থেকে জেলার বিভিন্ন স্থানে চারা গাছ বিক্রি করা হচ্ছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলা খুটাখালী, ডুলাহাজারা, ফাঁসিয়াখালী, বি এম চর, হারাবাং, বরইতলী, কাকারা, কৈয়ারবিল, পালাকাটা, পৌরশহরে হাজিয়ান, ফুলতলা, মগবাজারসহ বিভিন্ন এলাকার সড়কের পাশে বেশ কিছু নার্সারী রয়েছে। নার্সারী গুলো এখন চারাগাছে ভরপুর। এসব নার্সারিতে দেশী জাতের চারাগাছ উৎপাদনের পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণে বিদেশি প্রজাতির গাছের চারা বিক্রি হচ্ছে। স্থানীয় বাজারে চারাগাছের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বৃষ্টিপাত হওয়ায় হঠাৎ করে চারাগাছ বিক্রি বেড়ে যাওয়ায় নার্সারী মালিকেরা বেশ আনন্দিত খুশিতে মুখের হাসির ঝিলিক দেখা যাচ্ছে।
চারাগাছ কিনতে আসা পৌরশহরে বাসিন্দা মোঃ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বসতবাড়িতে রোপন করার জন্য ফলদ, বনজ ও ফুলগাছের ৩০টি চারা ক্রয় করেছি। বৃষ্টিপড়ার সাথে সাথে চারাগাছ কিনতে চলে আসলাম, পরে আসলে চাহিদা অনুযায়ী চারা পাবো না।

নার্সারি ব্যবসা করে স্বাবলম্বী হওয়া বিএমচর ইউনিয়ন বেতুয়াবাজার জসিম গার্ডেন নার্সারির মালিক জসিম বলেন, আমরা কক্সবাজার জেলাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে চারাগাছ সংগ্রহ করি,আবার সারা দেশে বিক্রিও করি।আষাঢ় মাস মানেই বৃষ্টির মাস। বৃষ্টির পর চারাবিক্রি শুরু হয়। করোনা কালীন সময় থেকে আগের চেয়ে গাছের চাহিদা অনেক বেড়ে গেছে। নার্সারী ব্যাবসায় স্বল্প পুঁজিতে সঠিক নিয়মে পরিশ্রম করলে দ্রুত সময়ে লাভবান হওয়া যায়। আমার নার্সারীতে প্রতিদিন ১০-১২ জন মানুষ কাজ করেন। আমরা কৃষি বিভাগ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নার্সারীতে কাজ করছি।
তিনি আরো বলেন, আমার নার্সারি থেকে প্রতিদিন ছোট ছোট খুচরা ব্যবসায়ীরা চারা গাছ কিনে বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করছেন। যারা আগাম চারা কিনে তারা ভালো গাছের চারা পায়।

চকরিয়া উপজেলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস.এম. নাসিম হোসেন বলেন, উপজেলায় ছোট বড় অনেক নার্সারী আছে। এ বর্ষা মৌসুমেতে গাছের চারা বিক্রি  করে অনেক পরিবারের মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। কৃষি অফিস থেকে তাদেরকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হয় বলে জানান।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।